ঢাকা, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৫ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানছে ফিলিপাইনে, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা

২৪ ঘন্টা খবর বিডি

স্টাফ রিপোর্টার


প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১, ২০২০
শেয়ার করুনঃ

ফিলিপাইনের পূর্বাঞ্চলে আঘাত হেনেছে সুপার টাইফুন গনি। এটি চলতি বছর ভূ-পৃষ্ঠে আঘাত হানা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়। শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় এর হাত থেকে বাঁচতে ইতোমধ্যেই অন্তত ১০ লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ফিলিপাইনের সরকারি দুর্যোগ মোকাবিলা সংস্থার প্রধান রিকার্ডো জালাদ বলেছেন, অরক্ষিত এলাকায় বহু মানুষ রয়েছে। আমরা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছি।

স্থানীয় সময় রবিবার (১ নভেম্বর) সকালে ফিলিপাইনের দ্বীপ প্রদেশ ক্যাটানডুয়ানেসে আছড়ে পড়ে ক্যাটাগরি পাঁচ মাত্রার ঘূর্ণিঝড় গনি। এর বাতাসের নিয়মিত গতিবেগ ঘণ্টায় ২২৫ কিলোমিটার এবং দমকা হাওয়ার বেগ উঠছে ২৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত। ঝড়টি ধীরে ধীরে পশ্চিমে অগ্রসর হয়ে রাজধানী ম্যানিলার মতো ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার দিকে যাচ্ছে।

ফিলিপাইনের আবহাওয়া সংস্থা জরুরি নির্দেশনায় জানিয়েছে, আগামী ১২ ঘণ্টা এ অঞ্চলে ভয়াবহ বাতাসের সঙ্গে তুমুল বৃষ্টিপাত হতে পারে। সংস্থাটি বলেছে, ক্যাটানডুয়ানেসের সঙ্গে আরও চারটি প্রদেশ প্রথমে আঘাতপ্রাপ্ত হবে। এসব এলাকার বাসিন্দাদের প্রবল বন্যা, ভূমিধস, তীব্র বাতাস এবং পাঁচ মিটার পর্যন্ত জলোচ্ছ্বাসের জন্য সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

জালাদ বলেন, পূর্ব সতর্কতা হিসেবে ইতোমধ্যেই প্রায় ১০ লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিযে নেয়া হয়েছে। আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছে, সুপার টাইফুন গনি রোববার রাতে বা সোমবার ম্যানিলায় আঘাত হানতে পারে। এর প্রভাবে মারাত্মক ক্ষয়ক্ষতির জন্য তৈরি থাকতে সতর্ক করা হয়েছে।

ঝড়টি সিয়েরা মাদ্রে পবর্তমালায় আঘাত হানার পর কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়তে পারে। এরপর ধীরে ধীরে লুজন দ্বীপ হয়ে সেটি দক্ষিণ চীন সাগরে চলে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। টাইফুন গনির কারণে ম্যানিলার প্রধান বিমানবন্দরটি ২৪ ঘণ্টার জন্যে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে সব আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট।

জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশটির সেনা ও পুলিশ বাহিনীর পাশাপাশি কোস্টগার্ড এবং দমকলকর্মীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে।